সব খবর সবার আগে
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

খেলা

কোহলি-শামির দাপটে এক যুগ পর ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাইনালে ভারত

বিরাট কোহলির ইতিহাসগড়া সেঞ্চুরির পর মোহাম্মদ শামির রেকর্ডগড়া বোলিংয়ে নিউজিল্যান্ডকে ৭০ রানে হারিয়ে এক যুগ পর ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠল ভারত। বুধবার মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে প্রথম সেমিফাইনালে কোহলি (১১৭) ও শ্রেয়াস আয়ারের (১০৬) শতকে চার উইকেটে ৩৯৭ রানের পাহাড় গড়েছিল স্বাগতিকরা।

0 31

জবাবে ড্যারিল মিচেলের (১৩৪) সেঞ্চুরি ও অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসের (৬৯) ফিফটির পরও ৩২৭ রানে গুটিয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। ভারতের প্রথম বোলার হিসাবে বিশ্বকাপে ৫০ উইকেটের মাইলফলক ছোঁয়া শামি ৫৭ রানে নেন সাত উইকেট। বিশ্বকাপে এক ম্যাচে সাত উইকেট নেওয়া পঞ্চম বোলার শামি। এবারের আসরে ছয় ম্যাচে ২৩ উইকেট নিয়ে তিনিই এখন সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি।

মুখস্ত মাঠে টস জিতে ব্যাটিং নিতে ভুল করেননি অধিনায়ক রোহিত। ব্যাটিং কীভাবে করতে হবে তাও তো জানা তার। সেভাবেই শুরু করে ২৯ বলে ৪৭ রানের ঝড় দেখিয়ে ফিরে যান। চারটি করে চার ও ছক্কা মারেন। শুভমন গিলকে নিয়ে ৮.২ ওভারে দলকে এনে দেন ৭১ রান। ওই ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে গিল-কোহলি-আয়ার দুর্দান্ত ব্যাটিং করে দলকে ৪ উইকেটে ৩৯৭ রানের বিশাল সংগ্রহ এনে দেন।

সেঞ্চুরির আশা দেওয়া গিল ৭৯ রান করে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে ফিরে যান। শেষ দিকে ক্রিজে এসে মাত্র ১ রান যোগ করে অপরাজিত থাকেন। তবে কোহলি ও আয়ার সেঞ্চুরি করতে ভুল করেননি। কিং কোহলি ১১৩ বলে নয়টি চার ও দুই ছক্কায় খেলেন ১১৭ রানের ইনিংস। ওয়ানডে ক্রিকেটের প্রথম ব্যাটার হিসেবে ৫০টি সেঞ্চুরির কীর্তি গড়েন। এছাড়া বিশ্বকাপের এক আসরে শচীনকে ছাড়িয়ে সর্বোচ্চ রানও করেন। আয়ারের ব্যাট থেকে আসে ৭০ বলে ১০৫ রানের বিধ্বংসী ইনিংস। তিনি আটটি চার ও চারটি ছক্কার শট তোলেন।

জবাব দিতে নেমে ৩৯ রানে ২ উইকেট হারালেও কেন উইলিয়ামসন ও ডার্লি মিশেলের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়িয়ে চোখ রাঙাতে থাকে নিউজিল্যান্ড। কেন ও ডার্লি ১৮১ রানের জুটি গড়েন। তুলে খেলতে গিয়ে কিউই অধিনায়ক ৭৩ বলে ৬৯ রান করে আউট হন। দলের রান তখন ৩২.২ ওভারে ২২০। সেখান থেকে মিশেল ১১৯ বলে ১৩৪ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন। তার ব্যাট থেকে নয়টি চার ও সাতটি ছক্কা আসে। তবে গ্লেন ফিলিপস ছাড়া পরের ব্যাটাররা আশাও দিতে পারেননি। ফিলিপস থামেন ৩৩ বলে ৪১ রানে। ব্ল্যাক ক্যাপসরা ৭ বল থাকতে ৩২৭ রানে অলআউট হয়।

২০১৫ ও ২০১৯ বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলা নিউজিল্যান্ডের এবারের যাত্রা তাই শেষ চারে থামল। ১৯৮৩ ও ২০১১ আসরের চ্যাম্পিয়ন ভারত পা রাখল ফাইনালে। দলকে শিরোপার লড়াইয়ে তুলতে ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামি দুর্দান্ত বোলিং করেছেন। তিনি ৯.৫ ওভারে ৫৭ রান দিয়ে নিয়েছেন ক্যারিয়ার সেরা ৭ উইকেট। চলতি আসরে এটি তার তৃতীয়বার ৫ উইকেট নেওয়ার কীর্তি। এছাড়া বুমরাহ ও কুলদীপ যাদব একটি করে উইকেট নেন।

সর্বশেষ খবর এবং আপডেটের জন্য আমাদের সাবস্ক্রাইব করুন। আপনি যেকোনো সময় বন্ধ করতে পারবেন।

Loading...

আমরা কুকি ব্যবহার করি যাতে অনলাইনে আপনার বিচরণ স্বচ্ছন্দ হয়। সবগুলো কুকি ব্যবহারের জন্য আপনি সম্মতি দিচ্ছেন কিনা জানান। হ্যাঁ, আমি সম্মতি দিচ্ছি। বিস্তারিত