সব খবর সবার আগে
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

কুমারখালী

কুমারখালীতে দুই বাংলার সংস্কৃতির সেতু বন্ধন

মিলন মেলায় পদ্মা-গঙ্গা সাহিত্য-সাংস্কৃতিক উৎসব

0 1,031

মিলন মেলায় জমে উঠেছিল পদ্মা-গঙ্গা সাহিত্য-সাংস্কৃতিক উৎসব। কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে হয়ে গেলো দুই বাংলার সংস্কৃতির এই সেতু বন্ধন। ১২ মে শুক্রবার বিকেলে কাঙাল হরিনাথ মজুমদার স্মৃতি জাদুঘরে আয়োজনটি করেছে একুশে সাংস্কৃতিক সংগঠন। “দুই বাংলার সংস্কৃতির সেতু বহিবে সাধনায় চিরদিন দুই বাংলা এক বাঙালি থাকবে সম্প্রীতি মৈত্রী ও বন্ধন” এই শিরোনামে এই আয়োজন করা হয়।

দুই বাংলার সাহিত্য-সাংস্কৃতিক ব্যক্তিদের নিয়ে পদ্মা গঙ্গা সাহিত্য সাংস্কৃতিক উৎসবে শতাধিক কবি সাহিত্যিক অংশ নেন। এই উৎসব উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ। এছাড়া সংবর্ধিত অতিথি ছিলেন, বিশ্ব বঙ্গ সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্মেলনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক এবং বিশিষ্ট নাট্যকার, সাহিত্যিক ও পশ্চিমবাংলার সাংবাদিক ড. রাধাকান্ত সরকার।

বাংলাদেশ ও ভারত জাতীয় সংগীতের মধ্যদিয়ে শুরু হয় এ উৎসব। কুমারখালী ইতিহাস ঐতিহ্য সংস্কৃতি পরিষদের সভাপতি এ বি এম কাইছার রেজা’র সভাপতিত্বে এই আয়োজনে বিশেষ অতিথি ছিলেন, বিশিষ্ট কবি সৈয়দ আব্দুস সাদিক, বিশিষ্ট কবি ও দৈনিক বাংলাদেশ বার্তা পত্রিকার সম্পাদক আবদুর রশিদ চৌধুরী, কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক শিশির কুমার রায়, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অধ্যাপক আনছার হোসেন, কুমারখালী সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বিনয় কুমার সরকার, কুষ্টিয়া আবৃত্তি পরিষদের সভাপতি ও কবি আলম আরা জুঁই, কুমারখালী শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান আইয়ুব এবং কুমারখালী পাবলিক লাইব্রেরীর সাধারণ সম্পাদক মমতাজ বেগম।

দুই বাংলার এই উৎসবে আলোচনা করেন, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. সরওয়ার মুর্শেদ, ভারতের পশ্চিম বাংলার সাহিত্যিক ও অধ্যাপক ড. গৌর প্রসন্ন মন্ডল এবং কবি ও সাহিত্যিক সোহেল আমিন বাবু।

উৎসব উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন একুশে সাংস্কৃতিক সংগঠনের সভাপতি তুষার আহমেদ রেজা এবং কুমারখালী ইতিহাস ঐতিহ্য সংস্কৃতি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক লিটন আব্বাস।

অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন, কবি মেহেদী হাসান, প্রভাষক মোশারফ চৌধুরী, প্রভাষক মালা পাল, শিল্পী প্রসাদ বিশ্বাস, কণ্ঠ শিল্পী জিয়াউর রহমান মানিক এবং কণ্ঠ শিল্পী রফিকুল ইসলাম।

পরে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান করেন স্থানীয় শিল্পীরা।

সর্বশেষ খবর এবং আপডেটের জন্য আমাদের সাবস্ক্রাইব করুন। আপনি যেকোনো সময় বন্ধ করতে পারবেন।

Loading...

আমরা কুকি ব্যবহার করি যাতে অনলাইনে আপনার বিচরণ স্বচ্ছন্দ হয়। সবগুলো কুকি ব্যবহারের জন্য আপনি সম্মতি দিচ্ছেন কিনা জানান। হ্যাঁ, আমি সম্মতি দিচ্ছি। বিস্তারিত