সব খবর সবার আগে
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

জাতীয়

মিয়ানমার সীমান্তরক্ষীর আরও ১৭৯ সদস্য পালিয়ে নাইক্ষ্যংছড়িতে

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির জামছড়ি সীমান্ত এলাকা দিয়ে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনীর আরও ১৭৯ সদস্য পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। মিয়ানমারের অংথাপায়া ক্যাম্প থেকে সোমবার অনুপ্রবেশ করেছেন তারা। এর আগে ১৫ ফেব্রুয়ারি রাখাইন রাজ্যে সংঘাতময় অবস্থার মধ্যে পালিয়ে আসা মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী, সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যসহ ৩৩০ জনকে দেশটিতে ফেরত পাঠানো হয়।

0 38

এদিকে নাইক্ষ্যংছড়িতে সীমান্তের ওপার থেকে আসা গুলিতে এক ইউপি সদস্য আহত হয়েছেন। সোমবার বিকেল ৪টার দিকে জামছড়ি মসজিদের পাশে দাঁড়িয়ে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলার সময় সাবের আহমদ নামে ওই ইউপি সদস্য আহত হন। তাঁর কোমরে গুলি এসে লাগে। এর পর তাঁকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

বিজিবি ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নাইক্ষ্যংছড়ির জামছড়ি সীমান্তের ৪৫ নম্বর পিলারের কাছাকাছি এলাকা হয়ে সোমবার দুপুরে প্রথম দফায় ২৯ জন বিজিপি সদস্য বাংলাদেশে ঢোকেন। নাইক্ষ্যংছড়ি বিজিবির ১১ ব্যাটালিয়নের জামছড়ি সীমান্ত চৌকিতে তারা আশ্রয় চান। বিজিবি সদস্যরা তাদের নিরস্ত্র করে নুরুল আলমের চা বাগানে আশ্রয় দেন। জামছড়ি সীমান্ত অত্যন্ত দুর্গম এলাকা। সেটি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা সদর থেকে অন্তত ২০ কিলোমিটার দূরে। এর পর রাত ৮টার দিকে আরও ১৪৬ বিজিপি সদস্য বাংলাদেশে ঢোকেন। রাত সাড়ে ৮টার দিকে আসেন আরও ৪ জন। সব মিলিয়ে এক দিনে মিয়ানমারের ১৭৫ সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সদস্য বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছেন।

নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আবছার জানান, রাখাইন রাজ্যের বিদ্রোহী সশস্ত্র সংগঠন আরাকান আর্মির (এএ) সঙ্গে দেশটির জান্তা বাহিনীর গোলাগুলি বেশ কিছু দিন ধরে চলছে। আরাকান আর্মির সঙ্গে লড়াইয়ে টিকতে না পারায় সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে তারা আশ্রয় নিতে এসেছে। দু’পক্ষের লড়াইয়ে কয়েক দিন বিজিপির বেশ কয়েকটি সীমান্ত চৌকি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্যাম্পের সদস্যরা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন।

তীব্র খাবার ও চিকিৎসা সংকটের মধ্যে তারা আর টিকে থাকতে পারছেন না বলে সীমান্তের ওপার থেকে খবর মিলছে।

কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তের ওপারে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে টানা দুই সপ্তাহ ধরে চলছে থেমে থেমে গোলাগুলি ও মর্টার শেলের বিস্ফোরণ। তীব্র বিস্ফোরণে কেঁপে উঠছে বাংলাদেশ সীমান্তের টেকনাফ এলাকার ঘরবাড়ি। সীমান্তের ওপারে ভারী অস্ত্রের টানা ব্যবহার টেকনাফবাসীর আতঙ্ক আরও বাড়িয়েছে। অনেকটাই থমকে গেছে জনজীবন। কাজে যেতে পারছেন না শ্রমজীবীরা।

গত ২ ফেব্রুয়ারি রাত থেকে নাইক্ষ্যংছড়ির সীমান্তের ওপারে আরাকান আর্মির সঙ্গে বিজিপির সংঘর্ষ শুরু হয়। এর জেরে ৪ থেকে ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন বিজিপি সদস্যসহ ৩৩০ জন।

সর্বশেষ খবর এবং আপডেটের জন্য আমাদের সাবস্ক্রাইব করুন। আপনি যেকোনো সময় বন্ধ করতে পারবেন।

Loading...

আমরা কুকি ব্যবহার করি যাতে অনলাইনে আপনার বিচরণ স্বচ্ছন্দ হয়। সবগুলো কুকি ব্যবহারের জন্য আপনি সম্মতি দিচ্ছেন কিনা জানান। হ্যাঁ, আমি সম্মতি দিচ্ছি। বিস্তারিত